Close

মাগরিবের নামাজ কয় রাকাত ও কি কি? ও মাগরিব নামাজের সময়

প্রিয় পাঠক বন্ধুরা, আজকে আমরা আলোচনা করতে যাচ্ছি, মাগরিবের নামাজ কয় রাকাত ও কি কি ? ও মাগরিব নামাজের সময় কখন তা নিয়ে। সাথেই থাকুন।

মাগরিবের নামাজ কয় রাকাত ও কি কি

মাগরিবের নামাজ হলো মোট- ৭ রাকাত।

  1. ৩ রাকাত ফরয
  2. ২ রাকাত সুন্নাতে মুয়াক্কাদাহ
  3. ২ রাকাত নফল

মাগরিব তিন রাকাত ফরয নামাজ এর নিয়ত

نويت أن أصلى لله تعالى ثلث ركعات صلوة المغرب فرض

الله تعالى متوجها إلى جهة الكعـبـة الـشـريـفـة الله أكبر

উচ্চারণঃ ”নাওয়াইতু আন উছাল্লিয়া লিল্লাহি তা’আলা ছালাছা রাকআ’তি সালাতিল মাগরিবি ফারদুল্লাহি তা’আলা (ইকতাদাইতু বিহাযাল ইমাম) মুতাওয়াজ্জিহান ইলা জিহাতিল কা’বাতিশ্ শারীফাতি আল্লাহু আকবার।”

[জামাআতে ইমামের পিছনে নামাজ আদায় করা হলে নিয়ত করার সময় ফারদুল্লাহি তাআলার পর বলতে হবে “ইকতাদাইতু বিহাযাল ইমাম” বলে তারপর বাকী অংশ বলতে হবে।]

বাংলায় নিয়তঃ ”আমি কেবলামুখী হইয়া আল্লাহর জন্য মাগরিবের তিন রাকয়া’ত ফরজ নামাজ (এই ইমামের পিছনে) আদায় করিবার নিয়ত করিলাম, আল্লাহু আকবার।”

মাগরিব দুই রাকাত সুন্নত নামাজের নিয়তঃ

نويت أن أصلى الله تعالى ركعتي صلوة المغرب سنة رسول

الله تعالى متوجها إلى جهة الكلية الشريفة الله أكبر

উচ্চারণ: “নাওয়াইতু আন উছল্লিয়া লিল্লাহি তা’আলা রাকয়াতাই সালাতিল মাগরিবি সুন্নাতু রাসূলিল্লাহি তা’আলা মুতাওয়াজ্জিহান ইলা জিহাতিল কা’বাতিশ শারীফাতি আল্লাহু আকবার”।

বাংলায় নিয়তঃ “আমি আল্লাহর জন্য কেবলামুখী হইয়া মাগরিবের দুই রাকয়াত সুন্নাত নামাজের নিয়ত করিলাম, আল্লাহু আকবার।

মাগরিবের সুন্নত নামাজ আদায় করার নিয়ম

ফজরের দুই রাকাত সুন্নত নামাজ আর মাগরিবের দুই রাকাত সুন্নত নামাজ আদায় করার নিয়ম একই। শুধুমাত্র নিয়তের মধ্যে ফজরের দুই রাকাত সুন্নত এর স্থানে মাগরিবের দুই রাকাত সুন্নতের কথাটা উল্লেখ করতে হবে।

মাগরিবের দুই রাকাত নফল নামাজের নিয়ত

نويت أن أصلى لله تعالى ركعتي صـلـوة المغـرب نـفل

متوجها إلى جهة الكعبة الشريفة الله اكبر

উচ্চারণঃ “নাওয়াইতু আন্ উছাল্লিয়া লিল্লাহি তায়ালা রাকয়াতাই সালাতিন্নাফলি, মুতাওয়াজ্জিহান ইলা জিহাতিল কা’বাতিশ্ শারীফাতি আল্লাহু আকবার”।

বাংলায় নিয়তঃ “আমি কেব্‌লামুখী হইয়া আল্লাহর জন্য দুই রাকয়াত নফল নামাজ আদায়ের জন্য নিয়ত করিলাম, আল্লাহু আকবার”।

মাগরিব নামাজের সময়

সূর্য পশ্চিম আকাশে সম্পূর্ণ অস্ত যাওয়ার পর থেকে মাগরিবের নামাজের সময়/ওয়াক্ত শুরু হয়। তারপর পশ্চিম আকাশের শাফাক অদৃশ্য হওয়া পর্যন্ত মাগরিবের ওয়াক্ত চলমান থাকে থাকে এবং এই নির্ধারিত সময়ের মধ্যে মাগরিবের নামাজ আদায় করতে হয়। অর্থাৎ, মাগরিবের নামাজের শেষ সময় হলো পশ্চিম আকাশের শাফাক অদৃশ্য হওয়া পর্যন্ত। ইমাম আবূ ইউসুফ (রহঃ) ও ইমাম মুহাম্মদ (রহঃ)- বলেছেন “সূর্য অস্তমিত হওয়ার পর পশ্চিমাকাশে যে লালবর্ণ দেখা যায় তাকে শাফাক বলে”। অপরদিকে ইমাম আবু হানিফা (রহঃ)- বলেন “লালবর্ণ অদৃশ্য হয়ে যাওয়ার পর যে সাদা বর্ণ বা শুভ্র আকাশ তাকেই শাফাক বলে”। ইমাম আবূ হানিফা (রহ)-এর মতের উপরই ফতোয়া চলোমান আছে। (ফতোয়ায়ে আলমগীরী)

মাগরিব নামাজের সময় /ওয়াক্ত থাকে প্রায় ১ ঘণ্টা ১৫ মিনিট । তবে সূর্য অস্ত যাওয়ার পর পর অর্থাৎ আযানের সাথে সাথেই মাগরিবের নামাজ আদায় করা হয়। এছাড়াও, মাগরিবের নামাজ দেরী করে আদায় করা মাকরূহ। মাগরিবের নামাজের শেষ সময় এ না পরা উত্তম।

আরও পড়ুনঃ

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!