Close

ঘর্ষণ কাকে বলে? কত প্রকার ও কি কি? ঘর্ষণের সুবিধা ও অসুবিধা কি কি?

ঘর্ষণ কাকে বলে

একটি বস্তু যখন অন্য কোন একটি বস্তুর সংস্পর্শে থেকে একটির উপর দিয়ে অপরটি চলতে চেষ্টা করে অথবা চলতে থাকে তখন বস্তু দুটির স্পর্শতলে গতির বিরুদ্ধে একটি বাঁধার সৃষ্টি হয়, এ বাঁধাকে ঘর্ষণ বলা হয়।

ঘর্ষণের প্রকারভেদ (Types of Friction)

সাধারণত ঘর্ষণ চার প্রকারের হয়ে থাকে

  1. স্থিতি ঘর্ষণ (Static friction)
  2. পিছলানো ঘর্ষণ (Sliding friction)
  3. আবর্ত ঘর্ষণ (Rolling friction) ও
  4. প্রবাহী ঘর্ষণ (Fluid friction)।

স্থিতি ঘর্ষণ

দুটি বস্তুর তলের একটি অপরটির তুলনায় গতিশীল না হলে এদের মধ্যে যে ঘর্ষণ সৃষ্টি হয়, তাকে স্থিতি ঘর্ষণ বলা হয়। অর্থাৎ যখন একটি বস্তুর উপর বল বা চাপ প্রয়োগ করা হয়, কিন্তু এ বল বস্তুটির গতি সৃষ্টি করতে পারে না তখন সেই ঘর্ষণকে স্থিতি ঘর্ষণ বলা হয়।

পিছলানো ঘর্ষণ

যখন একটি বস্তু অপর বস্তুর তথা তলের উপর দিয়ে পিছলিয়ে যায় বা ঘেঁষে চলতে চেষ্টা করে বা চলে তখন পিছলানো ঘর্ষণের সৃষ্টি হয়।

আবর্ত ঘর্ষণ

যখন কোন বস্তু অপর একটি বস্তুর তলের উপর দিয়ে গড়িয়ে চলে তখন গতির বিরুদ্ধে যে ঘর্ষণ ক্রিয়ার সৃষ্টি হয়, তাকে আবর্ত ঘর্ষণ বলে।

মার্বেলের গতি, কেলের চাকার গতি হলো আবর্ত ঘর্ষণের উদাহরণ। অনেক সময় ভ্রমণের গেলে মালামাল পরিবহনের জন্য আমরা চাকা লাগানো লাগেজ ব্যবহার করে থাকি। চাকা লাগানোর ফলে লাগেজটি এক স্থান থেকে অন্য স্থানে পিছলিয়ে নিতে হয় না এবং কষ্টও কম। তবে চাকা লাগানোর ফলে লাগেজটি টেনে নেওয়া বেশ সহজতর হয়ে যায়। অর্থাৎ আবর্ত ঘর্ষণ বল পিছলানো ঘর্ষণ বলের তুলনায় কম।

প্রবাহী ঘর্ষণ

যখন একটি বস্তু যে কোনো প্রবাহী পদার্থ যেমন– বায়বীয় বা তরল পদার্থের মধ্যে গতিশীল থাকে তখন যে ঘর্ষণ ক্রিয়ার সৃস্টি হয়, তাকে প্রবাহী ঘর্ষণ বলে। যখন পুকুর বা নদীতে সাঁতার কাটা হয় তখন পানির মধ্য দিয়ে একটি বাধাকে অতিক্রম করতে হয়। আর এই জাতীয় বাধাই হলো প্রবাহী ঘর্ষণ। প্যারাসুট বায়ুর বাধাকে কাজে লাগিয়ে কাজ করে। এখানে বায়ু থেকে প্রাপ্ত বাধা হলো এক ধরনের ঘর্ষণ বল যা পৃথিবীর অভিকর্ষ বলের বিপরীতে ক্রিয়া/কাজ করে।

ঘর্ষণের সুবিধা (Advantages of Friction)

ঘর্ষণের সুবিধাগুলো নিচে আলোচনা হলো–

  1. ঘর্ষণ প্রক্রিয়া না থাকলে আমরা হাঁটতে পারতাম না, পিছলে যেতাম।
  2. ঘর্ষণের ফলে কাঠে পেরেক বা স্ক্রু আটকে থাকে।
  3. এটা না থাকলে দড়িতে কোন গিরো দেওয়া যেত না।
  4. কোন কিছু আমাদের ধরে রাখা সম্ভব হতো না।

ঘর্ষণের অসুবিধা (Disadvantages of Friction)

ঘর্ষণের অসুবিধাগুলো নিচে আলোচনা হলো–

  1. যন্ত্র চলার সময় গতিশীল অংশগুলোর ঘর্ষণ বল ক্রিয়া করার ফলে সেই অংশগুলো ক্রমশ ক্ষয়প্রাপ্ত হয়।
  2. যন্ত্রের যান্ত্রিক দক্ষতা ধীরে ধীরে কমে যায়।
  3. ঘর্ষণের ফলে অতিরিক্ত তাপ উৎপন্ন হয়ে যন্ত্রের ক্ষতি হয়।

আরও পড়ুন

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published.